Call to drop cases against workers in deadly Bangladesh protest

19 April 2021 | Stephan Uttom Rozario | The UCA News 
----------------------------------------------


Several NGOs and human rights organizations have called for the immediate withdrawal of cases filed against Bangladeshi workers over a protest that led to police shooting dead five people.

Workers at the S. Alam-owned SS Power Plant in Banshkhali in Chittagong district were holding a demonstration on April 17 over working conditions and overdue salaries when police opened fire on them, killing five and injuring at least 30.

Police and S. Alam Group have filed two cases against the protesters accusing them of attacking police officers and setting fire to vehicles.

The Bangladesh Working Group on External Debt, NGO Forum on ADB, Asian People’s Movement on Debt and Development, Netherlands-based Re-course and Urgewald held a virtual press conference on April 19.

The groups called for strict legal measures against the sponsor and financers of the under-construction power plant and the police for being responsible for killing five workers.

At the press conference, Abdul Gani, a welder at the plant, gave a first-hand account of the incident.

“A syndicate takes 5,000 taka (US$59) in advance for the worker’s job, 2,000 taka for clothing and 10 percent of the monthly salary of each worker. Before the lockdown, we worked for 12 hours without any overtime. The salary was 18,000 taka for two shifts. After lockdown the work hours came down to 10 hours, but no overtime," he said.

“As we don’t have any trade unions, we demanded an eight-hour day in the month of Ramadan, a one-hour break on Fridays for Jumma prayers and an overtime payment. We also demanded advanced salary during Eid.”

Ryayan Hasan from NGO Forum on ADB termed the killings an absolute violation of human and constitutional rights.

“We demand that all financers of the project including the Bank of China and China Exim are held accountable for their failure to safeguard the workers,” he said.

Source: https://www.ucanews.com/news/call-to-drop-cases-against-workers-in-deadly-bangladesh-protest/92175

Govt should stop funding fuel-run power plants: Saber

21 April 2021 | The NewAge 
------------------------------------- 

Bangladesh should stop subsidising fossil fuel based power plants in order to fulfil commitments it has made in various international climate forums, said Saber Hossain Chowdhury, chairman of the parliamentary standing committee on environment, forest and climate change. 

He said that while working for making industrialised countries responsible for environmental degradation, Bangladesh should also ensure that steps had been taken by it so that the environment would not harm.

‘Power sector subsidy has to go,’ said Saber as he addressed an online conference in the afternoon organised ahead of the two-day-long virtual climate summit to begin from April 22 hosted by the US president Joe Biden. 

Bangladesh Working Group on External Debt organised the discussion. Green activists from India, Nepal, Pakistan, Sri Lanka and Bhutan participated in the conference titled Poeple2biden. 

They said that the point of climate discussions at this moment should be about sharing technologies that developed countries were improving with minimal environmental damage. 

Besides claiming reparations from industrialised countries like the USA who are responsible for climate change, the most vulnerable but developing countries also need to make sure that they have the access to clean technologies developed by developing countries, they said. 

‘We demand that Biden should take historical responsibility of climate change,’ said Hemantha Withanage, executive director of the Centre for Environmental Justice, Sri Lanka. 

About 1.8 billion people suffer from climate crisis and the people included countries such as Bangladesh and Sri Lanka, one of the least carbon emitters in the world, he said. 

A total of 40 countries have been invited to the summit with participation from Bangladesh, India and Bhutan from South Asia. 

Speakers reminded that the US is the world’s one of the biggest fossil fuel financiers and also one of the largest patronisers of fossil fuel industry in terms of manufacturing equipment needed to run the industry. 

২০৩০ সালের মধ্যে ৩০% নবায়নযোগ্য জ্বালানির কথা ভাবা হচ্ছে

20 April 2021 | The Prothom Alo 
------------------------------------------ 

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, দেশে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ৩০ শতাংশ নবায়নযোগ্য জ্বালানি নিশ্চিত করার কথা ভাবা হচ্ছে। তিনি বলেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে দক্ষিণ এশীয় দেশগুলোর জীবাশ্ম জ্বালানি খাতে ভর্তুকি কমিয়ে আনতে হবে। জ্বালানি খাতে বাংলাদেশের বছরে প্রায় এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার ভর্তুকি দিতে হয়। আগামী ৯ বছরের মধ্যে এটা শূন্যে নামিয়ে আনতে হবে। 

আজ মঙ্গলবার দক্ষিণ এশীয় জলবায়ু কর্মীদের আয়োজনে পিপল টু বাইডেন ভার্চ্যুয়াল সম্মেলনে সাবের হোসেন চৌধুরী এ কথা বলেন। বাংলাদেশের বৈদেশিক দেনাবিষয়ক কর্মজোট (বিডব্লিউজিইডি) ও পার্টিসিপেটরি রিসার্চ অ্যাকশন নেটওয়ার্ক (প্রান), এনজিও ফোরাম অন এডিবি, শ্রীলঙ্কার সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল জাস্টিস, নেপালের ডিগো বিকাশ ইনস্টিটিউট, ভারতের গ্রোথওয়াচ ও মাইনস মিনারেলস অ্যান্ড পিপল (এমএমপি) এবং পাকিস্তানের কিষান রাবিতা কমিটি যৌথভাবে এ ভার্চ্যুয়াল সম্মেলনের আয়োজন করে। ২২ ও ২৩ এপ্রিল মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের উদ্যোগে অনুষ্ঠেয় লিডার্স সামিট অন ক্লাইমেট সামনে রেখে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

Sponsor, Financiers and the Members of the Police Force should face the Strictest Legal Measure for Banshkhali Killing: Speakers Demanded in a Press conference


19 April 2021

Speakers in a press conference on Monday demanded the strictest legal measure against the sponsor and financiers of the Banshkhali under-construction coal power plant, and the members of the police force for being responsible for killing 5 workers of the said plant on Saturday. 

They also called for an immediate withdrawal of the cases filed against the workers which could essentially harass them by criminalising their peaceful protest. 

The virtual press conference was jointly organised by the Bangladesh Working Group on External Debt (BWGED), NGO Forum on ADB, Asian People’s Movement on Debt and Development (APMDD), Re-course, and Urgewald. 

In the press conference, Abdul Gani (pseudonym), a welder of the Banshkhali power plant for three months gave his firsthand account of Saturday’s incident. 

Five workers by the police were shot dead on Saturday when the workers of Banshkhali power plant were protesting for their due wages at a China-backed under-construction coal power plant. 

Gani told that the workers at the plant were appointed by a subcontractor led by a local syndicate, controlled by the local Chairman Liaqat Ali, member Kamal Hossain and another called Abu Ahammed. 

“The syndicate takes BDT 5000 BDT in advance for the worker’s job, BDT 2000 for clothing and 10% of the monthly salary of each worker. Before lockdown, we worked for 12 hours without any overtime pay. The salary was BDT 18,000 in two shifts. After lockdown, the work hour came down to 10 hours, but no overtime”. 

“As we don’t have any trade union, we demanded 8-hours work in the month of Ramadan, 1-hour break on Fridays for Jumma prayer and overtime payment. We also demanded advanced salary during Eid as we usually get our salary 10-15 days past the next month”. 

According to Gani, as their demand was not met, they stopped working on Saturday and started to protest. Suddenly, police from the nearest station and the subcontractor’s gang members wearing police cloth came and started beating the workers. 

“We started fleeing the scene, threw some bricks for self-protection. Then the police started throwing tear shells, rubber bullets followed by an open fire. 4 Were spot dead”. 

Gani claimed that two criminal cases have been filed following the incident, but none of the main culprits was accused. He also claims that if the workers weren’t attacked, nothing would have happened. 

“Our demand was not a very serious one. We demanded overtime pay because everything is so expensive here in the power plant during the lockdown and in the month of Ramadan. Rice is BDT 80 a kilo”. 

“How could we keep up with this? Ahmed Reza, who was killed by the police was a mere student. He just started working for 2 weeks as a helper to support his family”, said Gani. 

Environmentalist Syeda Rizwana Hasan, chief executive of Bangladesh Environmental Lawyers Association (BELA) demanded the government to scrap the power plant deal as the sponsors were incapable of dealing with the project. 

“The owner has to be held responsible for the behaviours of the contractors and subcontractors. This power plant doesn’t have endorsement from the local people, this is not the first time killing happened in Banshkhali. If the first incident in 2016 were investigated by a neutral judicial body, the same thing wouldn’t have happened again”, she added. 

Terming the workers killing a heinous act, Lidy Nacpil from APMDD said that the coal plants are doing greater harm to our climate, now these coal plant owners are not even doing justice to their workers. The owner and the financiers of the plant should be held accountable for their actions. 

Rayyan Hasan from NGO Forum on ADB termed the event as an absolute violation of human and constitutional rights. 

“We demand that all financiers of the project including Bank of China, China Exim are held accountable for their lack of safeguarding of the workers”. 

Knud Vocking from Urgewald, Petra Kejll from Re-course, Sinologist Nora Sausmikat, Bar-at-law Jyotirmoy Barua and BWGED convener Dr Kazi Maruful Islam also spoke at the press conference. 

The 2.5 billion-dollar, 1200 MW coal power plant, 30 per cent owned by Chinese engineering giant SEPCOIII, has been at the centre of other deadly protests in recent years. 

Rights activists say the power plant, 70 per cent owned by the S. Alam Group does not meet environmental impact standards and was built without public consultation. 

It is one of the biggest investments made by Chinese companies in Bangladesh. The deal was one of many announced when President Xi Jinping visited in 2016.

বাঁশখালীতে গুলি করে শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদে ৬৮ নাগরিকের বিবৃতি

17 April 2021 | The Sharabangla.net 
--------------------------------------------- 


বাঁশখালী বিদ্যুৎকেন্দ্রে কর্মরত শ্রমিক হত্যা ও নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন দেশের ৬৮ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি। তারা এ ঘটনাকে আইনের পরিপন্থী উল্লেখ করে হত্যা ও গুলিবর্ষণের ঘটনার নিরপেক্ষ বিচার-বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। একইসঙ্গে দোষী পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন। 

শনিবার (১৭ এপ্রিল) সংবাদ মাধ্যমে এ বিবৃতি পাঠান। 

বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘বকেয়া মজুরির দাবিতে সমাবেশরত নিরীহ শ্রমিকদের ওপর গুলিবর্ষণ একটি গর্হিত অপরাধ ও গণতান্ত্রিক সমাজের জন্য লজ্জাকর। আমরা এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। বাংলাদেশের সংবিধান ও আইন অনুসারে পুলিশ কোন অবস্থাতেই নিরীহ শ্রমিকদের ওপর গুলি চালানোর অনুমতি পেতে পারে না।’ 

তারা আরও বলেন, ‘করোনা অতিমারির এই দুর্যোগে শ্রমজীবী মানুষের জীবন-জীবিকা যেখানে এমনিতেই দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে, সেখানে মজুরি না দেওয়া শ্রম আইন ও মানবাধিকারের লঙ্ঘন। এস আলম গ্রুপের মতো ধনী শিল্পগোষ্ঠী কেন শ্রমিকদের বকেয়া বেতন পরিশোধ করেনি তার যথাযথ তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। একইসাথে শ্রমিকদের মজুরি প্রদানে অবহেলা করার কারণে এস. আলম গ্রুপের সঙ্গে কয়লা-বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে সরকারের যে চুক্তি হয়েছে তা বাতিলের দাবি জানাই।’ 

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন- গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, মানবাধিকার কর্মী ড. হামিদা হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক আকমল হোসেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর আনু মুহাম্মদ, নিজেরা করি’র সমন্বয়কারী খুশি কবীর, ব্র্যাকের নির্বাহী চেয়ারম্যান হোসেন জিল্লুর রহমান, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম। 

আলোকচিত্রী শহিদুল আলাম, এএলআরডি’র নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা, সেন্ট্রাল উইমেনস্ ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক পারভীন হাসান, নারী অধিকার কর্মী ফরিদা আখতার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক সি আর আবরার, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টে ব্যারিস্টার সারা হোসেন, লেখক রেহনুমা আহমেদ, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী আদিলুর রহমান খান, নারী অধিকার কর্মী শিরীন হক, অ্যাক্টিভিস্ট, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হাসনাত কাইউম, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. জাহেদ ইকবাল। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ফেরদৌস আজিম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর রোবায়েত ফেরদৌস, প্রাণ-প্রকৃতি সুরক্ষা মঞ্চের আহ্বায়ক ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, লেখক ও গবেষক মোবাশ্বার হাসান, গবেষক এবং অধিকারকর্মী রেজাউর রহমান লেনিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক জোবায়দা নাসরিন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সাদাফ নূর-এ ইসলাম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস, এনজিও ফোরাম অন এডিবির নির্বাহী পরিচালক রায়ান হাসান, মানবাধিকার কর্মী নূর খান লিটন, সাংবাদিক গৌরাঙ্গ নন্দী। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শাহনাজ হুদা, পাঠশালা সাউথ এশিয়ান মিডিয়া ইনস্টিটিউটের শিক্ষক তানজিম ওয়াহাব, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব চাইল্ড হেলথের ডা. নাইলা জেড খান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মির্জা তাসলিমা সুলতানা, লেখক ও অনুবাদক ওমর তারেক চৌধুরী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গ্র্যান্ড ভ্যালি স্টেইট ইউনিভার্সিটির শিক্ষক আজফার হোসেন, গবেষক ও অধিকারকর্মী মাহা মির্জা, ব্যঙ্গচিত্র-শিল্পী আহমেদ কবির কিশোর, মানবাধিকার কর্মী নাসিরুদ্দিন এলান, সাংবাদিক সায়দিয়া গুলরুখ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নাসরীন খন্দকার, সঙ্গীত শিল্পী ও লেখক অরূপ রাহী, চেঞ্জ ইনিশিয়েটিভের নির্বাহী পরিচালক এম. জাকির হোসেন খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সারওয়াত শামীন, আলোকচিত্রী ও শিক্ষক জান্নাতুল মাওয়া, মংলা নাগরিক সমাজের শেখ নূর আলম, প্রান্তজনের নির্বাহী পরিচালক তৌহিদুল ইসলাম শাহজাদা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাইদুল ইসলাম, আর্টিস্ট ডিরেক্টর লুবনা মরিয়ম, আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আল নোমান, শিক্ষক ও সাংস্কৃতিক সংগঠক রেবেকা সুলতানা, শিক্ষক ও গবেষক কাজী ওমর ফয়সাল, সেফটি অ্যান্ড রাইটস সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক সেকান্দার আলী মিনা সুমন, পাঠশালা সাউথ এশিয়ান মিডিয়া ইনস্টিটিউটের শিক্ষক তানজিম ওয়াহাব, সংশপ্তকের সমন্বয়কারী অগ্রদূত দাশগুপ্ত। 

পরিবর্তন-রাজশাহীর নির্বাহী পরিচালক রাশেদ রিপন, শিল্পী ও সংগঠক অমল আকাশ, নারী অধিকার জোটের মুক্তাশ্রী চাকমা সাথী, মানবাধিকার কর্মী তাসাফি হোসেন, শিক্ষক, সংস্কৃতিকর্মী বীথি ঘোষ, চলচ্চিত্র নির্মাতা অপরাজিতা সংগীতা, গবেষক রোজিনা বেগম, অধিকারকর্মী মারজিয়া প্রভা এবং বাংলাদেশের বৈদেশিক দেনা বিষয়ক কর্মজোটের (বিডাব্লিউজিইডি) হাসান মেহেদী। 

Banshkhali workers killing draws protests

18 April 2021 | The NewAge 
------------------------------------- 

Sixty eight eminent citizens of the country in a joint statement on Saturday said that they were outraged by the news of police killing five workers by opening fire on a peaceful demonstration of the workers at the Banshkhali power plant. 

The statement said that the workers were demonstrating for their arrears and opening fire on their peaceful demonstration was a shameful act which went against the rule of law. 

The statement accused the police, who are responsible for the protection of the citizens, of abusing their power by opening fire on such a demonstration. 

Neither the Constitution nor any laws permit the police to open fire on workers under any circumstances, said the statement. 

The Police Regulations of 1943 directs the police to exercise minimum force as a last resort for dispersing a gathering that may threaten public security and fire could not be opened unless warnings were issued several times beforehand, said the statement. 

The aim of opening fire is not to kill but to disperse the gathering, said the statement. The statement demanded a judicial probe into the incident and punishment of the perpetrator police personnel. 

The statement said that the pandemic made life already difficult and not paying workers their arrears constituted offense under the labour law. The statement demanded an investigation into why S Alam Group did not pay the workers at the plant. 

The statement also demanded cancellation of the contract signed between S Alam Group and the government for building the coal-fired power plant at Banshkhali. 

The statement was signed, among others, by Gonoshasthaya Kendra founder Zafrullah Chowdhury, adviser to a former caretaker government Sultana Kamal, Professor Anu Muhammad, BRAC executive chairman Hossain Zillur Rahman, Transparency International Bangladesh executive director Iftekharuzzaman, photographer Shahidul Alam, women’s rights activist Farida Akhtar, writer Rahnuma Ahmed, human rights activist Nur Khan, Professor Asif Nazrul, lawyers Sara Hossain and Syeda Rizwana Hasan, and former cabinet secretary Ali Imam Majumder.

Besides, Bangladesh Paribesh Andolan, Bangladesh Sramik Kalyan Federation, Sramik Karmachari Oikya Parishad Ganasamhati Andolan, Bangladesh Biplobi Sramik Sanghati and Socialist Students’ Front in separate statements condemned the murders of five workers and demanded a judicial probe into the murders. 

They said that the government continued to use police force for suppressing rightful demands. They recalled the 2016 incident in which four villagers in Banshkhali were shot dead during a protest against the acquisition of land for building the power plant. 

They demanded compensation to the families of the slain workers, treatment of the injured ones and realisation of the workers’ demands for which they were demonstrating. 

Progressive Students Alliance, a platform of left-leaning students’ organisations, on Saturday held a procession on the campus protesting at the killings of the workers at Banshkhali in Chittagong, reported DU correspondent. 

Ignoring the ongoing restrictions on movement, the procession broke out from the Teacher-Student Centre on Dhaka University campus on Saturday at about 5:00pm. 

The protesters chanted slogans against the government for the killings of the workers. 

After marching through different streets of the campus, they held a protest rally at the base of the Anti-terrorism Raju Memorial. 

Bangladesh Students Union central vice-president Nazir Amin Joy and joint secretary of DU unit Ragib Nayeem, among others, attended the procession.

Source: https://www.newagebd.net/article/135652/banshkhali-workers-killing-draws-protests

শ্রমিক নিহতের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি ৬৮ নাগরিকের

18 April 2021 | The Prothom Alo 
----------------------------------------- 


চট্টগ্রামের কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্রে বকেয়া মজুরির দাবিতে বিক্ষোভরত শ্রমিকদের ওপর গুলি ও নিহতের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে শনিবার বিবৃতি দিয়েছেন দেশের ৬৮ জন বিশিষ্ট নাগরিক। তাঁরা এ ঘটনার নিরপেক্ষ বিচার বিভাগীয় তদন্ত ও দোষী পুলিশ সদস্যদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন। 

পাশাপাশি শ্রমিকদের মজুরি দিতে অবহেলার কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রের উদ্যোক্তা এস আলম গ্রুপের সঙ্গে সরকারের কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণসংক্রান্ত চুক্তি বাতিলের দাবি জানানো হয়। একই ঘটনায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন বিবৃতি দিয়েছে। তারা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তির পাশাপাশি নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে একজন শ্রমিকের আজীবন আয়ের সমান আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানায়। 

চট্টগ্রামের এস আলম গ্রুপ ও চীনা প্রতিষ্ঠান সেফকো থ্রি পাওয়ার কনস্ট্রাকশন কোম্পানির যৌথ উদ্যোগে নির্মাণাধীন ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্র এসএস পাওয়ার প্ল্যান্টে শনিবার শ্রমিকদের বিক্ষোভে গুলি চালায় পুলিশ। এতে পাঁচজন নিহত এবং অনেকেই আহত হন। এর আগে ২০১৬ সালে একই বিদ্যুৎকেন্দ্রে গুলিতে চারজনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। 

৬৮ জন বিশিষ্ট নাগরিকের বিবৃতিতে বলা হয়, বকেয়া মজুরির দাবিতে সমাবেশরত নিরীহ শ্রমিকদের ওপর গুলিবর্ষণ একটি গর্হিত অপরাধ ও গণতান্ত্রিক সমাজের জন্য লজ্জাকর। যেখানে জনগণের নিরাপত্তা দেওয়া পুলিশের কাজ, সেখানে এমন নির্মম ও অবিবেচনাপ্রসূত হত্যাকাণ্ড ক্ষমতার অপপ্রয়োগ এবং চরম অনাচারের শামিল। 

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, করোনা মহামারির এ দুর্যোগে শ্রমজীবী মানুষের জীবন-জীবিকা যেখানে এমনিতেই দুর্বিষহ, সেখানে মজুরি না দেওয়া শ্রম আইন ও মানবাধিকারের লঙ্ঘন। এস আলম গ্রুপের মতো ধনী শিল্পগোষ্ঠী কেন শ্রমিকদের বকেয়া মজুরি পরিশোধ করেনি, তার যথাযথ তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। 

বিবৃতিতে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, হামিদা হোসেন, আকমল হোসেন, সুলতানা কামাল, আলী ইমাম মজুমদার, আনু মুহাম্মদ, খুশী কবির, হোসেন জিল্লুর রহমান, ইফতেখারুজ্জামান, শাহীন আনাম, শহিদুল আলম, শামসুল হুদা, পারভীন হাসান, সি আর আবরার, সারা হোসেন, রেহনুমা আহমেদ, সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, আদিলুর রহমান খান, আসিফ নজরুল, রোবায়েত ফেরদৌস, জ্যোতির্ময় বড়ুয়া, জোবায়দা নাসরিন, নূর খান, মাহা মির্জা, আহমেদ কবির কিশোর প্রমুখ সই করেন। 

এদিকে এ ঘটনার নিন্দা এবং তদন্ত ও বিচারের দাবিতে শনিবার বিবৃতি দেয় বাম গণতান্ত্রিক জোট, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), নাগরিক ঐক্য, শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ (স্কপ), বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল, গণসংহতি আন্দোলন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, খেলাফত মজলিস, মানবাধিকার সংস্কৃতি ফাউন্ডেশন (এসএসএফ) ও সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন। 

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বিবৃতিতে বলেন, নিরীহ শ্রমিকেরা তাঁদের ন্যায্য দাবি জানাতে গিয়ে গুলি খেয়ে মরবে, এটা স্বাধীন দেশে, স্বাধীনতার এ সুবর্ণজয়ন্তীতে কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।